Search
  • scienceandargument

ম্যাগনেটিক রেসোনেন্স ইমেজিং - MRI কী ?



আধুনিক কালের চিকিৎসা-বিজ্ঞানে ম্যাগনেটিক রেসোনেন্স ইমেজিং (সংক্ষেপে বলা হয় এম আর আই) পদ্ধতির প্রয়োগ বিশাল পরিসরে। ক্লিনিক্যাল নি্উরোলজি থেকে শুরু করে, কার্ডিওলজি, ক্যানসার, সফট টিসুর ক্ষতি, মৌলিক বিজ্ঞানে মস্তিষ্কের ক্রিয়া অথবা ক্যানসারের বৃদ্ধি সব ক্ষেত্রেই এম আর আই-এর গুরুত্ব অপরিসীম। বর্তমানে আমাদের ডাক্তার বন্ধুরা সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় করার জন্যে এম আর আই-পদ্ধতির সাহায্য নিয়মিত নিয়েই থাকেন। ফলত যেকোনো আধুনিক চিকিৎসাকেন্দ্রে চোখ খোলা রাখলেই দেখা যাবে, এদের অবস্থান। ২০২১ সালে দাঁড়িয়ে এম আর আই-এর এই যে উপযোগিতা, বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তির এই যে গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োগ, তার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপিত হয়েছিল আজ থেকে বহু দশক আগে। সময়টা ছিল গত শতাব্দীর ঠিক মাঝামাঝি, আরও নির্দিষ্ট করে বললে চল্লিশের দশকের প্রথম দিক। সারা পৃথিবীতে চলছে তখন চরম অশান্তি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কাল। সেই সময়ই আমেরিকার স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে অধ্যাপক ফেলিক্স ব্লক -এর তত্ত্বাবধানে চলছে অনেক গবেষণা, চলছে চেষ্টার পরে চেষ্টা, চলছে যুক্তি-তর্কের খেলা। উদ্দেশ্য নিউক্লিয়ার ম্যাগনেটিক রেসোনেন্স (সংক্ষেপে বলা হয় এন এম আর) কে পরীক্ষাগারে বাস্তবায়িত করা। ব্লক-এর মূল বক্তব্য ছিল: আমরা যদি এই পরীক্ষায় সফলতা না পাই, তাহলে সারা পৃথিবীর বিজ্ঞান-মহল হাসবে। কারণটা ছিল অতি পরিষ্কার। সেই সময়ের প্রায় দুই দশক আগেই ইলেকট্রন স্পিনের ধারণা এবং ইলেকট্রন স্পিনেরও যে ম্যাগনেটিক মোমেন্ট আছে তা প্রমাণিত স্তারন গারলার পরীক্ষার মাধ্যমে। স্পিন একটি জটিল ধারণা সেই বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে খুব সহজ করে বললে কোয়ান্টাম বলবিজ্ঞান তত্ত্ব অনুযায়ী স্পিন মানে যেকোনো বস্তুর মৌলিক কণার অন্তর্নিহিত কৌণিক ভরবেগ। মৌলিক কণার স্পিনকে আমরা চোখে দেখতে পাইনা, কিন্তু তার অস্তিত্ব বিভিন্ন পরীক্ষার মাধ্যমে যাচাই করা যায়। সময়ের সাথে এও প্রমাণিত হয়েছে কিছু নিউক্লিয়াসও ধারণ করে স্পিন ও ম্যাগনেটিক মোমেন্ট। ইতিমধ্যেই বিজ্ঞানীমহলের এক অংশ এন এম আর-এর পরীক্ষাগারে সম্ভাবনা নিয়ে তত্ত্ব দিয়ে ফেলেছেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের জন্যে প্রযুক্তি অনেক উন্নত হয়েছে, মূলত বেতার কম্পাঙ্ক সম্পর্কিত প্রযুক্তি। অনেকের চেষ্টার কোনো ত্রুটি ছিল না, কিন্তু একটা কারণে অথবা অন্য কারণে, সফলতা আসছিল না। অবশেষে সুদিন এলো। ব্লক সফলতার সাথে প্রথম এন এম আর-এর সিগন্যাল দেখতে পেলেন, সময়টি ১৯৪৫ সালের ডিসেম্বর মাস, যে নমুনাটি নিয়ে তাঁরা পরীক্ষা করেছিলেন তা ছিল প্যারাফিন, এবং তাঁরাই প্রথম প্রোটন এন এম আর করলেন। তাদের সেই কাজ ১৯৪৬ সালের ফিসিক্যাল রিভিউ জার্নালে-এ প্রকাশিত হয়। এখানে উল্লেখ্য যেহেতু ফেলিক্স ব্লক জন্মসূত্রে ছিলেন একজন জিউ, হিটলারের জার্মানি থেকে তিনিও কিন্তু চলে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন, ভিড় করেছিলেন আমেরিকাতে। আজকাল অনেকেই তর্কের খাতিরে বলে থাকেন, বর্তমানে আমেরিকার এই যে উন্নতি, বিশেষত তথ্য-প্রযুক্তির ক্ষেত্রে তাদের যে হই-হই দশা, তার জন্যে কিছুটা নাকি জার্মানরাই দায়ী। সেই সময়ে হিটলারের অসয্য-সব আচরণের ফল-স্বরূপ বহু গুণী ব্যক্তিই ইউরোপ ছেড়ে আমেরিকার পথে হেটেছিলেন। তবে ব্লক একা নয়, আমেরিকার ঠিক আর একটি প্রান্তে, মজার ব্যাপারটি হল ঠিক একই সময়ে, এডওয়ার্ড পারসেল নামক আর এক বিজ্ঞানী হারভারড বিশ্ববিদ্যালয়ে এন এম আর সিগন্যাল দেখতে পেলেন। ব্লক ও পারসেল তাঁদের এই যুগান্তকারী সৃষ্টির জন্যে, ১৯৫২ সালে নোবেল পুরস্কার পান। ১৯৪৫ সালের এই আবিষ্কারের ঠিক কিছু বছর পরেই কোলকাতাতে অধ্যাপক মেঘনাদ সাহার তত্ত্বাবধানে তারাপদ দাস ও এন এম আর সিগন্যাল দেখে ফেললেন। খুব ভুল না হলে সময়টা হবে ১৯৫২-১৯৫৩ সাল। পরে অবশ্য অধ্যাপক দাস আমেরিকাতে চলে যান, আর সেখানেই থেকে যান শুধু একটা বছর হয়ত তারপরে দেশে ছিলেন। কোনো একটা লেখায় পড়েছিলাম, অধ্যাপক মেঘনাদ সাহা নাকি অধ্যাপক দাসকে তাঁর আমেরিকা ভ্রমণের আগে বলেছিলেন, সালটা ১৯৫৪-১৯৫৫ এর কাছাকাছি হবে, তুমি দেশে ফিরে এসে এই এন এম আর সংক্রান্ত গবেষণাকে প্রসারিত করো। পরবর্তীকালে ইতিহাস সাক্ষী থেকেছে এন এম আর-এর উন্নতির চাকা সারা বিশ্বব্যাপী আর থেমে থাকে নি। যদিও মূলনীতি ও আবিষ্কার পদার্থবিদদের থেকেই এসেছিল, এরপরে রসায়ন, জীববিদ্যা বিভাগে এন এম আর এর প্রয়োগ একেবারে ছাপিয়ে গেল। সময়ের সাথে সাথে এই তত্ত্ব ও নীতির ওপর ভিত্তি করেই সৃষ্টি করা হল "নিউক্লিয়ার ম্যাগনেটিক রেসোনেন্স ইমেজিং" করার পদ্ধতি এবং যন্ত্রপাতি। বর্তমানে বিভিন্ন রোগ নির্ণয় করার জন্যে এই যন্ত্রের প্রয়োগ অনস্বীকার্য। কিন্তু চিকিৎসা-বিজ্ঞানের বড় মাথাদের নিউক্লিয়ার শব্দটি ঠিক পছন্দ হল না। কারণ নিউক্লিয়ার মানেই কেমন একটা বিনাশের গন্ধ, কেমন একটা যুদ্ধের আভাস। তাই পরিস্থিতির চক্রে বর্তমানে এই পদ্ধতিটি এম আর আই হিসেবেই আমাদের কাছে পরিচিত। বিজ্ঞানের এই অসাধারণ ক্রমবিকাশের জন্যে ২০০৩ সালের মেডিসিন বিভাগীয় নোবেল প্রাইজটি পান যুগ্মভাবে পাউল লউটারবুর (Paul Lauterbur) এবং পিটার মান্সফিল্ড (Peter Mansfield)। তবুও এখনও এম আর আই-এর প্রয়োগ চিকিৎসাক্ষেত্রে রোগ নির্ণয়ের জন্যে যথেষ্ট খরচ এবং সময় সাপেক্ষ। অনেক সাধারণ মানুষেরই তা হাতের নাগালের বাইরে। আশা করা যায় সময়ের সাথে, বিজ্ঞানী ও ইঞ্জিনিয়ারদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এই প্রযুক্তির আরও অনেক উন্নতি হবে, অনেক সাধারণ মানুষ এই প্রযুক্তি থেকে উপকার লাভ করবেন। যে এন এম আর প্রায় ৭৫ বছর আগে শুধুমাত্র এক মৌলিক গবেষণার বিষয় ছিল, সেই মৌলিক নীতিকে কাজে লাগিয়ে আজ মানব দেহের জটিল রোগ নির্ণয়ের সহায়ক। অন্যদিকে এন এম আর পদ্ধতির প্রয়োগের বিস্তার কিন্তু আরও অনেক। এই অংশটি শেষ করা যায় এটা লিখে মৌলিক গবেষণার লাভের গুড়টি পেতে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই অনেক সময় লেগে যায়। (চলবে.........)

125 views0 comments

Recent Posts

See All

David Pines and Robert Laughlin introduced a very important concept of physics namely ‘Quantum Protectorate’ through an article with the title ‘The Theory of Everything’ published in 2000. Followed by